রোববার   ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||  ফাল্গুন ১৬ ১৪২৭ ||  ১৬ রজব ১৪৪২

ACI Agri Business

বাকৃবিতে চাষযোগ্য মাছে প্রোবায়োটিকের প্রভাব নিয়ে কর্মশালা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৯:২৭, ২৫ জানুয়ারি ২০২১

বাংলাদেশের নির্বাচিত চাষযোগ্য মাছের প্রজাতি বৃদ্ধি ও প্রজননে প্রোবায়োটিকের প্রভাব নিয়ে ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়,কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশন(কেজিএফ) এর যৌথ উদ্যোগে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার ২৫ জানুয়ারি ২০২১, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রফেসর আমিনুল হক বিল্ডিং কনফারেন্স রুমে এই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. জীবন কৃষ্ণ বিশ্বাস বলেন, আমাদের গবেষণা ও প্রযুক্তিসমুহ মৎস্যচাষী বান্ধব হতে হবে। গবেষণাসমূহ যেন খামারভিত্তিক হয় সে দিকে খেয়াল রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি সেইসাথে মৎস্যচাষীদের বক্তব্য শুনে খুবই আশাবাদী হন এবং এ খাতে আরও বেশী অর্থায়ন ও গবেষণা চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে সহযোগিতা করার আশ্বাস প্রদান করেন। 

এসময় তিনি বলেন, এই প্রকল্পের মাধ্যমে মাছ চাষে প্রোবায়োটিকের ব্যবহারের অবস্থা জানা যাবে এবং রুই, তেলাপিয়া, গুলশা, পাবদা এবং শিং মাছের দ্রুত বিকাশের জন্য উপযুক্ত প্রবায়োটিকগুলি নির্ধারণ করা হবে। 

অন্যুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ সিস্টেম, বাউরেস পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. মুহাম্মদ মাহফুজুল হক বলেন বাজারে অনেক ধরনের ভেজাল প্রোবায়োটিক রয়েছে, আমাদের সঠিক প্রোবায়োটিকের নির্বাচন ও প্রয়োগ পদ্ধতি নিয়ে আরও গবেষণা করা দরকার। সরকারী পর্যায়ে প্রোবায়োটিকের মান নিয়ন্ত্রণ করলে  খামারীরা এ থেকে উপকৃত হবে বলে জানান তিনি। 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত জাতীয় পুরষ্কারপ্রাপ্ত মৎস চাষী ও রিলায়েন্স অ্যাকুয়া ফার্মস, ময়মনসিংহ এর ব্যাবস্তাপনা পরিচালক রীতীশ পন্ডিত তার বক্তব্যে বলেন, মাছের অতিরিক্ত খাদ্য খরচের কারনে আজ মৎস্য চাষ ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে, আমাদের ১কেজি তেলাপিয়া মাছ উৎপাদন খরচ ৮০টাকা হলেও বিক্রি হচ্ছে ৭০-৭৫ টাকা। মাছের রোগব্যাধি নিরসনে গবেষকদের সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে প্রোবায়োটিক আমাদের দেশে আমদানি হচ্ছে কিন্তু এর গুণগত মান সঠিক আছে কী না, তা আমাদের পরীক্ষা করা জরুরি । 

তিনি আরও বলেন মারাত্নক রোগের কারনে গুলশা-শিং মাছ চাষ করা আমরা প্রায় ছেড়েই দিয়েছি, গবেষণা করে এর রোগ দমনের পদ্ধতি আবিষ্কার করতে পারলে মাছ চাষীরা লাভবান হতো। তিনি এ প্রকল্পের সফলতা কামনা করেন। 

প্রকল্পের প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর (পিআই), প্রফেসর ড. মোঃ শাহজাহান প্রকল্পের উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানান, বাংলাদেশে মাছ চাষে প্রোবায়োটিক এর পরিমাণ ও মাত্রা অনুসন্ধান করা, নির্বাচিত প্রোবায়োটিক এর বৈশিষ্ট্য নিরূপণ করা, প্রোবায়োটিক ব্যবহার করে একুরিয়ামে নাইল তেলাপিয়া মাছের বৃদ্ধির প্রভাব পর্যবেক্ষণ করা, নির্বাচিত প্রোবায়োটিক ব্যবহার করে পুকুরে পাবদা মাছের বৃদ্ধির প্রভাব পর্যবেক্ষণ করা, নির্বাচিত প্রোবায়োটিক ব্যবহার করে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে শিং, গুলশা এবং পাবদা মাছের বৃদ্ধির প্রভাব পর্যবেক্ষণ করা, নির্বাচিত প্রোবায়োটিক ব্যবহারের ফলে নাইল তেলাপিয়ার বৃদ্ধি এবং প্রজননে কি ধরনের প্রভাব পড়ে তা জিন এক্সপ্রেশনের মাধ্যমে যাচাই করা হবে এর মাধ্যমে । 

কর্মশালায় গবেষকগণ আরও বলেন, বাংলাদেশে আজ মাছ চাষে রাসায়নিক এবং এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার হচ্ছে এর ফলে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়ার বিকাশ ঘটছে যা আমাদের জলজ পরিবেশে দীর্ঘ মেয়াদি ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে। তাই জলজ পরিবেশে এন্টিবায়োটিকের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা করার জন্য পরিবেশ বান্ধব প্রোবায়োটিক এর ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

প্রোবায়োটিক মূলত অণুজীব যেমন: ব্যাসিলাস গ্রুপের ব্যাকটেরিয়া, ল্যাকটিক এসিড ব্যাকটেরিয়া, নাইট্রিফাইং ব্যাকটেরিয়া, ডিনাইট্রিফাইং ব্যাকটেরিয়া এর সমাহার। জলজ পরিবেশে প্রোবায়োটিক ব্যবহারের ফলে মাছের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়, রোগ নিয়ন্ত্রণ করা যায়, গ্রোথ প্রোমোটার হিসেবে কাজ করে, হজমে সাহায্য করে, প্রজননের সাহায্য করে, পানির গুণগত মান উন্নত করে, প্রোটিনের অন্যতম উৎস হিসেবে কাজ করে।

বক্তারা আরও জানান, বাংলাদেশে মাছ চাষের দিক থেকে বিশ্বের মধ্যে অন্যতম একটি দেশ। চাষের অধীনে মৎস্য উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। ২০০১-২০০২ সালে মাছের উৎপাদন ছিল ০.৭৯ মিলিয়ন মেট্রিক টন যা ২০১৮-২০১৯ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ২.৪০৫ মিলিয়ন মেট্রিক টন, এটি সম্ভব হয়েছে মাছ চাষে আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগ, সম্প্রসারণ, বৈচিত্র্যকরণ, এবং নিবিড় করণের মাধ্যমে। 

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রকল্পের প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর (পিআই), প্রফেসর ড. মোঃ শাহজাহান উক্ত প্রকল্পের উদ্দেশ্য, কার্যক্রম ও প্রত্যাশিত ফলাফল সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন। 

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মাৎস্য বিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মো. মামুনুর রশীদ এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড.এ.কে.শাকুর আহম্মদ। 

কেজিএফ এর আর্থিক সহযোগিতায় কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন,কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশন(কেজিএফ) এর নির্বাহী পরিচালক ড. জীবন কৃষ্ণ বিশ্বাস এবং বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ সিস্টেম, বাউরেস পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. মুহাম্মদ মাহফুজুল হক। অনুষ্ঠানে সরকারি,বেসরকারী, অফিসার, আমণ্ত্রিত অতিথি, মাছ চাষী, শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়।

Advertisement
Advertisement