শুক্রবার   ০৭ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২২ ১৪২৭ ||  ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ACI Agri Business

পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার নির্দেশ মন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২১:৪৯, ২৩ জুলাই ২০২০

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে স্বল্প পরিসরে, যথাসম্ভব লোক সমাগম কমিয়ে বসানো কোরবানির পশুর হাটে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্বসহ অন্যান্য সরকারি নির্দেশনা নিশ্চিত করতে স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীন জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো: তাজুল ইসলাম।

বৃহঃপতিবার মন্ত্রণালয়ের নিজ কক্ষে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা-২০২০ উপলক্ষে পশুর হাট ব্যবস্থাপনা, নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানি এবং দ্রুত বর্জ্য অপসারণ নিশ্চিতকল্পে অনলাইনে এক সভায় এই নির্দেশ দেন তিনি।

সভায় করোনার বিস্তার রোধে পশুর হাটে লোক সমাগম কমাতে কোন বিস্তীর্ণ এলাকায় পশুর হাট বসালে ভালো হবে, নাকি ছোট ছোট করে বিভিন্ন জায়গায় বসালে ভালো হবে সব দিক বিবেচনায় নিয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীনস্থ প্রতিষ্ঠান এবং স্থানীয় প্রশাসনকে হাট আয়োজন করতে বলেন মন্ত্রী।

করোনা ভাইরাসের বিস্তাররোধে অনলাইনে বা ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম থেকে কুরবানীর পশু কেনাবেচার আহ্বান করে মন্ত্রী বলেন, যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে কোরবানির পশুর হাট আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এছাড়া, নির্দিষ্ট স্থানে পশু কুরবানি দিয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে বর্জ্য অপসারণ করার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সকলের প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পশুরহাটের স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত যে গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে তা যথাযথ ভাবে পালন করে জেলা প্রশাসক, ইউএনও এবং জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে সরকারি নির্দেশনা মেনে পশুর হাট আয়োজনের ব্যাপারে যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা বলেন সেই সাথে সরকারের নির্দেশনা মেনে পশুর হাটে পশু বেচাকেনা করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

মন্ত্রী আরও বলেন, করোনার বিস্তাররোধে স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং পশুর হাটের স্বাস্থ্য বিধি মানা, ক্রেতা-বিক্রেতা কিভাবে পশুর হাটে আসবেন, হাট কিভাবে বসবে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে একটি সচেতনতামূলক টেলিভিশন বিজ্ঞাপ-টিভিসি তৈরি করা হয়েছে। এটি মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করেন মন্ত্রী।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এর সঞ্চালনায় সভায় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনসহ সকল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, বিভাগীয় কমিশনার এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবরা অংশ নেন।


 

Advertisement
Advertisement