বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯ ||  কার্তিক ৮ ১৪২৬ ||  ২৪ সফর ১৪৪১

দেশের ৯০ শতাংশ ফিড তৈরি হয় উন্নত ফর্মূলায়

প্রকাশিত: ২০:১৯, ২০ অক্টোবর ২০১৮

দেশের ৯০ শতাংশ ফিড উন্নত ফর্মূলায় এবং আধুনিক ফিড মিলগুলোতে তৈরি হচ্ছে তাই পোল্ট্রি বা ফিস ফিড নিয়ে শংকার কোন কারণ নেই বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয়ের (বাকৃবি) প্যাথলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. প্রিয় মোহন দাস। শনিবার ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত পোল্ট্রি রিপোর্টিং বিষয়ক মিডিয়া কর্মশালায় এ কথা জানান ড. প্রিয় মোহন।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক ড. সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার সবার জন্য শুধু খাদ্য নয়, পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছেন। পূর্বের যে কোন সময়ের তুলনায় বর্তমান সরকারের আমলেই পুষ্টি পরিস্থিতির সবচেয়ে বেশি উন্নতি হয়েছে। 

“তবে এখনো ডিম ও মুরগির মাংস নিয়েও সাধারন মানুষের মাঝে অনেক ভুল ধারনা আছে। এগুলো দূর করতে পারলে সাধারন মানুষের মাঝে স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক সচেতনা বাড়বে” বলেন ড. সুভাষ। সাধারণ মানুষের তথ্যের চাহিদা পূরণ ও তথ্যের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সংবাদকর্মী ও গণমাধ্যমকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করারও আহ্বান জানান জেলা প্রশাসক। 

বাকৃবি’র পোল্ট্রি বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. শওকত আলী বলেন, ডিমের উৎপাদন খরচ আগের চেয়ে বেড়েছে তাই প্রান্তিক খামারিদের বাঁচিয়ে রাখতে হলে খামারিরা যাতে ডিমের প্রকৃত মূল্য পায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

কর্মশালায় দৈনিক প্রথম আলোর যুগ্ম-সম্পাদক সোহরাব হাসান বলেন, ঢাকার বাইরে সাংবাদিকদের কাছে পোল্ট্রি বিষয়ক তথ্যের অপ্রতুলতা আছে, এ তথ্য চাহিদা পূরণে পোল্ট্রি সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। পোল্ট্রি যেহেতু একটি বিজ্ঞানভিত্তিক এবং স্পর্শকাতর শিল্প তাই এ বিষয়ে রিপোর্ট করার আগে প্রয়োজনীয় তথ্য পরিপূর্ণভাবে জেনে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন কোন ধরনের ভুল তথ্য না যায়। 

বেসরকারি সংস্থা ওয়াচডগ বাংলাদেশ -এর ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাষ্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল (বিপিআইসিসি) উক্ত কর্মশালার আয়োজন করে। কর্মশালায় অংশ নেন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক, টিভি চ্যানেল, বার্তা-সংস্থা এবং অন-লাইন নিউজ পোর্টালের ৩২ জন সাংবাদিক।