বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯ ||  কার্তিক ৮ ১৪২৬ ||  ২৪ সফর ১৪৪১

রূপচর্চায় টক দই

ত্বকের অবাঞ্চিত লোম দূর করে, চুল পরা কমায়

লেঃ কর্নেল মোঃ তুহিন হাসান, পিএসসি 

প্রকাশিত: ১৩:২৩, ২২ অক্টোবর ২০১৮

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

টক দই একদিকে যেমন খাবার হিসেবে অনেক উপকারী, তেমনি অন্যদিকে রূপচর্চায়ও এর ব্যবহার বেশ সমাদৃত। ত্বককে আরও সুন্দর এবং মসৃন করতে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বিহীন এই প্রাকৃতিক উপাদানটি বেশ কার্যকরী।

রূপচর্চায় যেভাবে ব্যবহার করতে পারেন টক দই:

১। রোদে পোড়া দাগ দূর করার জন্য ৫ চামচ টক দই, ১ চামচ চন্দন গুঁড়ো, ১ চামচ মসুর ডাল বাটা মিশিয়ে মুখ, হাত, পায়ে লাগিয়ে রাখুন। শুকালে ধুয়ে ফেলুন। ১ মাস এই মাস্কটি লাগিয়ে ফলাফল দেখুন। যাদের ত্বক শুষ্ক তারা মধু নিতে পারেন।

২। ৩ চামচ টক দই, আধা চামচ কাঁচা হলুদ বাটা, ১ চামচ বেসন মিশিয়ে মাস্ক হিসেবে লাগান, ত্বক ফর্সা হবে।

৩। স্টবেরি ফল ২ টি এবং ৫ চামচ টক দই ব্লেন্ড করে মুখে মাস্ক হিসেবে লাগান। ত্বক অনেক ফ্রেশ হবে, ত্বকের কোলাজেন এর সমতা রাখবে, ব্রণ এবং ত্বকের দাগ দূর করবে, বলিরেখা কমাবে।

৪। ত্বকের অবাঞ্ছিত লোম নিয়ে বিব্রত থাকেন অনেকেই। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াবিহীন ভাবে এই অবাঞ্ছিত লোম দূরীকরণে সাহায্য করতে পারে দই। ১ টেবিল চামচ টক দই, ২ টেবিল চামচ ময়দা, ১ চা চামচ লেবুর রস ও ১ চিমটি হলুদ মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। ত্বকে পুরু করে প্রলেপ দিন এবং শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এরপর পানি দিয়ে ভালো করে ঘষে ঘষে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩-৪ বার এই কাজ করুন। এই মিশ্রণটি লোমের রং পরিবর্তন করে এবং লোম ওঠার পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

৫। টক দই, কলা, ডিম একসাথে ব্লেন্ড করে চুলে দিয়ে রাখুন আধা ঘণ্টা। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। এতে করে চুল পড়া কমবে, চুল নরম হবে, চুল তাড়াতাড়ি লম্বা হবে।

৬। যাদের চুল একটু শুষ্ক ও রুক্ষ প্রকৃতির তারা চুলে মেহেদি লাগালে চুল আরো রুক্ষ হয়ে ওঠে। মেহেদি ব্যবহার করার সময় এর সাথে মিশিয়ে নিন মেহেদির অর্ধেক পরিমাণে টক দই, তারপর ব্যবহার করুন যথানিয়মে। চুলের রুক্ষতা দূর হয়ে চুল হবে কোমল।