মঙ্গলবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ৫ ১৪২৭ ||  ০৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ACI Agri Business

ডেইরি ও মৎস্য প্রকল্পের স্থবিরতায় সংসদীয় কমিটির ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৩:১৯, ৪ জানুয়ারি ২০২১

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন প্রকল্পের ‘দুরবস্থা’ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জাতীয় সংসদের অনুমিত হিসাব কমিটি। প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পে গাড়ি কেনা বাদে প্রকল্পটির আর কোনো বাস্তব অগ্রগতি না থাকা এবং প্রকল্পের গাড়ি, মোটরসাইকেল প্রকল্পের কাজের বাইরে ব্যবহার নিয়ে কমিটি ক্ষোভ প্রকাশ করে।

রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে সংসদের অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কমিটির বৈঠকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ৩৮টি প্রকল্পের সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে আলোচনা করা হয়। 

৩৮টি প্রকল্পের  মধ্যে ১৩টি প্রকল্পের অগ্রগতি ২৫ শতাংশের নিচে। ৮টি প্রকল্পের অগ্রগতি ৫০ শতাংশের নিচে আর ১৬টি প্রকল্পের অগ্রগতি ৫১-১০০ শতাংশের মধ্যে। একটি প্রকল্পের কাজ শতভাগ শেষ হয়েছে। কমিটি মনে করে, প্রকল্পকাজে ধীরগতি এবং আর্থিক সুশাসন না থাকায় সরকারের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ব্যর্থ হচ্ছে।  

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ৪ হাজার ২৮০ কোটি টাকার ‘প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন (এলডিডি) প্রকল্প’ শুরু হয় ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে। প্রকল্প শেষ হওয়ার কথা ২০২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর। এখন পর্যন্ত মাত্র ৬ শতাংশ কাজ হয়েছে। গাড়ি কেনা ছাড়া আর কোনো কাজই করা হয় নি। এই প্রকল্পের অধীন করোনাভাইরাস মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের প্রণোদনা দেওয়ার কথা থাকলেও তা এখনো দেওয়া হয়নি। আগামী এক মাসের মধ্যে এই প্রকল্পের সার্বিক কাজ নিয়ে কমিটিতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পে গাড়ি কেনা বাদে প্রকল্পটির আর কোনো বাস্তব অগ্রগতি না থাকা এবং প্রকল্পের গাড়ি, মোটরসাইকেল প্রকল্পের কাজের বাইরে ব্যবহার নিয়ে কমিটি ক্ষোভ প্রকাশ করে।

মৎস্য অধিদপ্তর থাকার পরও মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের প্রয়োজনীয়তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে সংসদীয় কমিটি। পাঁচটি প্রকল্পের কাজে আর্থিক ও বাস্তব অগ্রগতি সমান না থাকায় বিষয়টি তদারকি করে মন্ত্রনালয়কে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়। 

ইলিশ মাছ আহরন নিষিদ্ধ থাকার সময়ে জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থান এবং বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ব্যবহার করে সমুদ্র সম্পদ আহরনের সম্ভাব্য ক্ষেত্র খুঁজে বের করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করা হয়। 

করোনাকালে খামারিদের সাহায্য প্রদানের প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের তালিকা প্রনয়ন কিভাবে করা হয়েছে এবং হালদার উন্নয়ন নিয়ে কি কি পদক্ষেপ গ্রহন করা যায় সে বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা করা হয়।  

আব্দুস শহীদের সভাপতিত্বে কমিটির সদস্য চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, এ বি তাজুল ইসলাম, বজলুল হক, আহসান আদেলুর রহমান, ওয়াসিকা আয়শা খান ও খাদিজাতুল আনোয়ার বৈঠকে অংশ নেয়।
 

Advertisement
Advertisement