বৃহস্পতিবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ১ ১৪২৮ ||  ০৮ সফর ১৪৪৩

ACI Agri Business

গোল্ডেন রাইসের বাণিজ্যিক চাষের অনুমোদন দিলো ফিলিপাইন

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯:৫৫, ৩১ জুলাই ২০২১

বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ জিএম শস্য নতুন জাতের ধান গোল্ডেন রাইস বাণিজ্যিকভাবে চাষবাদ ও ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে ফিলিপাইন। আন্তর্জাতি ধান গবেষণার সদর দপ্তরের দেশটিতে গোল্ডেন রাইস চাষে আর কোন আইনগত বাধা নেই।  

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশটিতে এর আগে, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে মানুষ এবং প্রাণির খাদ্য হিসেবে ব্যবহারের জন্য নিরাপদ হিসেবে গোল্ডেন রাইসকে অনুমোদন দিয়েছিলো দেশটির কৃষি বিভাগ। সেই অনুমোদন পাওয়ার পর, ফিলিপাইনের জাতীয় ধান গবেষণা সংস্থা ফিলরাইস গোল্ডেন রাইসের সেনসরি ইভ্যালুয়েশন বিষয়ক গবেষণা শুরু করে। 

প্রায় দুই বছর চলে এই গবেষণা। সেনসরি ইভ্যালুয়েশনের আগে দীর্ঘদিন গবেষণাগারে এবং মাঠ পর্যায়ে গোল্ডেন রাইসের পরিবেশ ও স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তা নিয়ে গবেষণা করেন ফিলরাইসের বিজ্ঞানীরা। জিএম শস্য নিয়ে বিতর্ক থাকায় ফিলিপাইনের আইন অনুযায়ী, বাণিজ্যিক ব্যবহারের অনুমোদন পাওয়ার আগে পরিবেশ ও স্বাস্থ্যগত ছাড়পত্র নিতে হয় ভিটামিন এ সমৃদ্ধ নতুন এই ধানের জাতকে।

বাংলাদেশে গোল্ডেন রাইসের পরিবেশগত ছাড়পত্রের আবেদনটি দীর্ঘদিন ধরে পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে ঝুলে আছে। কৃষি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ২০১৭ সালের শেষ দিকে এই আবেদনটি করেছিলো বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি)। কয়েক বছর আগেই, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক ছাড়পত্র পেয়েছিলো গোল্ডেন রাইস। তবে, গোল্ডেন রাইসকে বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া প্রথম দেশ এখন ফিলিপাইন।

ফিলিপাইনে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন শিশু ভিটামিন এ ঘাটতির শিকার, বিশেষ করে দরিদ্র পরিবারগুলোতে এটি সবচেয়ে বেশি। এছাড়াও, সারাবিশ্বে অন্তত ১৯ কোটি শিশু ভিটামিন এ’র ঘাটতিজনিত বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগছে যার মধ্যে রয়েছে অন্ধত্ব ও দুর্বল রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা। গোল্ডেন রাইস পৃথিবীর প্রথম ভিটামিন এ সমৃদ্ধ চাল। এতে জেনেটিক মডিফিকেশন প্রযুক্তির সাহায্যে বিটা ক্যারোটিন যোগ করা হয়েছে যা থেকে একজন শিশুর দৈনিক ভিটামিন এ’র চাহিদার ৫০% পর্যন্ত পূরণ হতে পারে।

ফিলিপাইন ও বাংলাদেশে হেলদিয়ার রাইস প্রকল্পের আওতায় গোল্ডেন রাইস এর ফলন ও খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গবেষণা করছেন দুই দেশের বিজ্ঞানীরা। এই প্রকল্পের আওতায়, গোল্ডেন রাইস ছাড়াও, বর্তমানে উচ্চমাত্রার জিংক ও আয়রন সমৃদ্ধ চাল উদ্ভাবনে কাজ করছেন ফিলরাইস এবং ব্রি-এর বিজ্ঞানীরা।

Advertisement
Advertisement