বৃহস্পতিবার   ২৪ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ১০ ১৪২৮ ||  ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪২

ACI Agri Business

ইয়াসে ফসলের বেশি ক্ষয়ক্ষতির সম্ভবনা নেই- কৃষিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৫:৪০, ৩১ মে ২০২১

ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’এর প্রভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। তবে জলোচ্ছ্বাসে দেশে ফসলের ক্ষয়ক্ষতির তথ্য এখনো চূড়ান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। বৃহস্পতিবার  সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী এ কথা জানান।

এসময় কৃষিমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে আমরা মাঠে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তারা এটার মূল্যায়ন করছেন। কয়েকদিনের  মধ্যে মোট ক্ষতির হিসাব পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন মন্ত্রী। 

খুব বেশি ক্ষয়ক্ষতি হবে না উল্লেখ করে মন্ত্রী জানান পটুয়াখালীতে প্রায় আড়াই থেকে তিন লাখ টন মুগডাল হয় যা  অনেকটাই  হারভেস্ট হয়ে গেছে সেইসাথে লবণ সহনীয় ধানগুলো কাটা হয়েছে। 

তবে কিছু শাক-সবজি  ক্ষতি হয়েছে কিন্তু ব্যাপক বা বড় কোনো ফসলের ক্ষতি হয়নি বলে জানান মন্ত্রী। সব ফসল হারভেস্ট হয়েছে। সবাই এখন আমন লাগানোর অপেক্ষা করছে, আউশ লাগাচ্ছে। কাজেই খুব বেশি ক্ষয়ক্ষতি হবে না বলে আশা করেন তিনি। 

আব্দুর রাজ্জাক আরও বলেন, ‘ঘরবাড়িতে যেভাবে পানি উঠেছে, এটা তাদের অনেক কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। মানুষকে ঘরে ফিরিয়ে নেওয়া এবং খাদ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহ করা সরকারের বড় দায়িত্ব। সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণ মন্ত্রণালয় সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ইনশাআল্লাহ পর্যাপ্ত খাবার দেওয়া যাবে। এ মুহূর্তে খাবারের কোনো অভাব নেই।’

কৃষিযন্ত্র কিনতে কৃষকদের ঋণ দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, অঞ্চল ভেদে ৫০-৭০ শতাংশ ভর্তুকি দিয়ে কম্বাইন হারভেস্টার, রিপারসহ বিভিন্ন কৃষি যন্ত্রপাতি কৃষকদের দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু ভর্তুকি দেওয়ার পরও একটি কম্বাইন হারভেস্টার কিনতে ১০-১৫ লাখ টাকা কৃষককে দিতে হয়। অনেক ক্ষেত্রেই এ পরিমাণ অর্থ দিয়ে কৃষক যন্ত্র কিনতে পারে না। অন্যান্য কৃষিযন্ত্রের বেলায়ও একই ঘটনা। সেজন্য, বিভিন্ন ব্যাংক থেকে যাতে কৃষকেরা কৃষিযন্ত্র কেনায় সহজ শর্তে ঋণ পেতে পারে, সে বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে স্থানীয়ভাবে কৃষিযন্ত্র তৈরি করা হবে বলে আশ্বাস দেন তিনি। 

Advertisement
Advertisement