শনিবার   ২২ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ৮ ১৪২৮ ||  ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ACI Agri Business

আগাছা-ই খাচ্ছে ধান উৎপাদন ব্যয়ের এক-তৃতীয়াংশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৪:২৮, ৬ ডিসেম্বর ২০২১

ধান উৎপাদন খরচের এক-তৃতীয়াংশই চলে যাচ্ছে আগাছার পেছনে। শুধু তাই নয়, শ্রম ও সময়ও যাচ্ছে বেশি।  

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত হলো কেজিএফ-বিকেজিইটি-এর র্অথায়নে পরিচালিত সিজিপি প্রকল্প “ভ্যালিডেশন এন্ড আপস্কেলিং অফ রাইস ট্রান্সপ্লান্টিং এন্ড হারভেস্টিং টেকনোলজি ইন দ্যা সিলেক্টেড সাইটস অফ বাংলাদেশ (ভিআরটিএইচবি)” এর প্রারম্ভিক র্কমশালায় এসব তথ্য জানানো হয়।

মওসুম এবং এলাকা ভেদে মোট ধান উৎপাদন ব্যয়ের প্রায় ৩০-৩৫% আগাছা দমন ব্যবস্থাপনায় ব্যয় করতে হয় বলে কর্মশালায় জানান বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। আর এই সমস্যা সমাধানে শক্তি চালিত নিড়ানী যন্ত্র উদ্ভাবন করেছেন তারা।

কর্মশালায় জানানো হয়, ব্রি উদ্ভাবিত যন্ত্রের মাধ্যমে একসাথে একাধিক সারির আগাছা দমন করা সম্ভব। আর তাতে রাসায়নিক আগাছানাশক ব্যবহার হ্রাস পাবে বলেও মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। 

ব্রি’র পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রকল্পের আওতায় ব্রি উদ্ভাবিত রাইস ট্র্যান্সপ্লান্টার কাম সার প্রয়োগযন্ত্র, ব্রি শক্তি চালিত আগাছা দমন যন্ত্র এবং কম্বাইন হারভেস্টর যন্ত্র মূল্যায়ন, বৈজ্ঞানিক তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ করা হবে। মাঠ দিবস এবং প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তি তৈরি এবং প্রস্তাবিত যন্ত্র সমূহ জনপ্রিয়করণ করা হবে। 

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) এর উদ্যোগে এবং ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীরের সভাপতিত্ত্বে র্কমশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিবিদ ড. জীবন কৃষ্ণ বিশ্বাস, নির্বাহী চেয়ারম্যান, কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশন এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রির পরিচালক (প্রশাসন এবং সাধারন পরিচর্যা) ড. মো: আবু বকর ছিদ্দিক এবং পরিচালক (গবেষণা) ড. মো: খালেকুজ্জামান। প্রকল্প প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন প্রকল্পের প্রধান গবেষক এবং এফএমপিএইচটি বিভাগের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আনোয়ার হোসেন। 

Advertisement
Advertisement